রাতে ঘুমালেই দুঃস্বপ্ন দেখেন, স্লিপ অ্যাপনিয়ারের সমস্যা নিয়ে কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা :

0 90

- Advertisement -

ওয়েব ডেস্ক, ০৫ মে :- ঘুমের কারণেই শরীরে দানা বাঁধছে বিভিন্ন রোগ। একটানা বাড়িতে থেকে অনেকেরই ঘুমের সময় বেড়েছে আবার কারোর হয়তো কাজের চাপে ঘুমের সময়ের কোনও খেয়াল নেই। দিনের অর্ধেকটা সময়ই কেটে যাচ্ছে  ল্যাপটপ কিংবা কম্পিউটারে। যত দিন যাচ্ছে,  তত মানুষ যেন মেশিনে পরিণত হয়ে যাচ্ছে। সারাদিনের ২৪ ঘন্টা যেন কম হয়ে যাচ্ছে প্রতিটা মানুষের জন্য। সারাদিনতো আছেই, এর পাশাপাশি রাতের ঘুমোনোর সময়েও বাড়ছে মোবাইল ঘাটার প্রবণতা। যতক্ষণ ঘুম আসছে না ততক্ষণই চলতে থাকে ফেসবুক,হোয়াটসঅ্যাপ ও এছাড়া আরও নানা সাইটে চোখ বোলানো।  যা চরম ক্ষতি করছে শরীরের পাশাপাশি মস্তিষ্ক ও চোখের। আর দেরি করে ঘুমোতে গেলেই শরীরের নানা ক্ষতি।

 

- Advertisement -

 

 

 

সারাদিন কাজ করার পর প্রতিটা মানুষের কিছু না কিছু সমস্যা যেন লেগেই থাকে। প্রতিদিনই একই সময় ঘুমোতে যাওয়া অনেকেরই হয় না। আর সবশেষে ক্লান্ত শরীরে ঘুমোতে গেলেই ঘুম হোক কিংবা না হোক নানারকমের স্বপ্ন দেখা যেন বাধত্যমূলক। তার মধ্যে কিছু স্বপ্ন যেমন আমাদের মনে থেকে যায়। তেমনি আবার কিছু স্বপ্ন আড়ালে চলে যায়। তবে স্বপ্নের ভাল মন্দের উপরও অনেক কিছু নির্ভর করে। স্বপ্ন অনেকেই দেখে থাকেন। তার মধ্যে এমন কিছু স্বপ্ন থাকে যা কিনা ভীষনই সুখকর হয় আবার এমন কিছু স্বপ্ন আছে যা কিনা আবার ভয় পাইয়ে দেয়। তবে জানেন কি, এই স্বপ্নের কিছু কিছু ইঙ্গিত রয়েছে, যা বয়ে নিয়ে আসে সুসংবাদ। আবার এমন কিছু স্বপ্ন রয়েছে যার ইঙ্গিত মোটেই ভাল নয়। এরকম সমস্যায় অনেকেই পড়ে থাকেন, কিন্তু এই সমস্যাকে দীর্ঘদিন পুষে না রাখাই ভাল। ঘুমের পর খারাপ স্বপ্ন দেখা শরীরের উপরও খারাপ প্রভাব ফেলে, তাই আর দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

 

 

 

 

ঘুমানোর সময় প্রতিদিন অনেকেরই এক হয় না। ঘুমের ঠিক আগে অনেকেরই বই পড়া, সিনেমা দেখার অভ্যেস রয়েছে। ঘুমের ঠিক আগে সিনেমা বা বই মস্তিষ্কের উপর প্রভাব ফেলে। যার ফলে সেই বিষয় নিয়ে স্বপ্ন দেখতে পারেন। অনেকেই ঘুমোতে গেলেই নানারকমের ভয়ানক স্বপ্ন দেখছেন। এরকম সমস্যায় অনেকেই পড়ে থাকেন, কিন্তু এই সমস্যাকে দীর্ঘদিন পুষে না রাখাই ভাল। যাদের স্লিপ অ্যাপনিয়ার সমস্যা রয়েছে তারাই স্বপ্ন বেশি দেখেন। স্লিপ অ্যাপনিয়ার ফলে তৈরি হওয়া মানসিক সমস্যার ফলেই এই সমস্যা বেশি হয়। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, রাতের খাবার খেতে যাওযার বেশ কিছুক্ষণ পর ঘুমোতে যাওয়া উচিত। কারণ ঘুমানোর ঠিক আগে খাওয়ার পর মেটাবলিজম দ্রুত হয় এবং ব্রেন সক্রিয় হয়ে ওঠে। এই কারণে খাওয়া ও ঘুমের মধ্যে ব্যবধান রাখা উচিত। পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম না হলেও অনেকসময়ে খারাপ স্বপ্ন দেখতে পারেন। তবে মাঝেমধ্যে হলে কোনও ব্যাপার নয়, কিন্তু ঘনঘন হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। হঠাৎ করে মানসিক আঘাত পেলে, অতীতের কোনও ঘটনা বারবার মনে পড়লেও পোস্ট ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডারের সমস্যা দেখা দেয়। এর ফলেও ঘুমের ব্যাঘাত হয়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.