‘ইউনিফর্ম সিভিল কোর্ট অপ্রয়োজনীয়’:ওয়েসি, প্রত্যুত্তর দিলেন অসমের সি.এম শর্ম্মা

0 63

- Advertisement -

ওয়েব নিউজ, ১মে: দেশে অভিন্ন এক ও নাগরিক বিধি কার্যকর করা উচিত কি না? এ নিয়ে দেশজুড়ে চলছে জোর বিতর্ক। এখন এই ইস্যুতে এআইএমআইএম নেতা আসাদউদ্দিন ওয়েসি এবং অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্ম্মা মধ্যে বাক্ বিতর্ক বা সংঘর্ষ চলছে।

 

- Advertisement -

ওয়েসি বলেছেন, ‘এ দেশে অভিন্ন সিভিল কোর্টের প্রয়োজন নেই। যতদূর গোয়ার ইউসিসি সম্পর্কিত, এটি বলে যে যদি কোনও হিন্দু পুরুষের স্ত্রী ৩০ বছর বয়সের মধ্যে একটি ছেলের জন্ম না দেয়, তবে সেই ব্যক্তি আবার বিয়ে করতে পারে। সরকার কি সারা দেশে এমন ইউসিসি বাস্তবায়ন করতে চাইবে? দেশের আইন কমিশনও তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, দেশে অভিন্ন দেওয়ানি বিধি কার্যকর করার প্রয়োজন নেই।

 

ঔরঙ্গাবাদে বিজেপিকে নিশানা করে আসাদউদ্দিন ওয়েসি বলেন, ‘সারা দেশে ঘৃণার পরিবেশ তৈরি করা হচ্ছে। যেখানেই বিজেপির সরকার আছে, সেখানে আইনের শাসন নেই, বুলডোজারের শাসন আছে। সেখানে আদালতকে পাশ কাটিয়ে বুলডোজার দিয়ে বিচার দেওয়া হচ্ছে। সারাদেশে মুসলিমরা সম্মিলিতভাবে শাস্তি পাচ্ছে। এটা নিয়ে বিজেপিকে ভাবতে হবে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর নীরবতা ভাঙা উচিত।

 

মোদী সরকারকে চ্যালেঞ্জ করে ওয়েসি বলেন, ‘কিসি কে ম্যায় কে লাল মে না দৌম কি কোন ম্যায় কে লাল মে কর্ণ সক্তে হ্যায় হামলোগোকো (মুসলিমদের) ঘুষি মারেগা’। হিন্দুত্বের প্রচারে দেশে চলছে তুমুল রাজনীতি। হিন্দুত্বের সবচেয়ে বড় বিশ্বাসী কে তা নিয়ে চলছে প্রতিযোগিতা। এ প্রতিযোগিতায় সব নেতা ও দল এগিয়ে রয়েছে।

 

এমএনএস নেতা রাজ ঠাকরের ৩ মে এর মধ্যে মুম্বাইয়ের মসজিদ থেকে লাউডস্পিকার সরানোর হুমকির বিষয়ে, ওয়েসি বলেছিলেন, ‘এটি দুই ভাইয়ের মধ্যে লড়াই। নিজের রাজনীতি চকচকে করতেই এমন বক্তব্য দিচ্ছেন রাজ ঠাকরে। রাজ্যে যাতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি না হয় সেদিকে সরকারের খেয়াল রাখা উচিত। কিন্তু রাজ ঠাকরেকে যেভাবে জনসভা করার জন্য শহরের মাঝখানে জায়গা দেওয়া হয়েছে, তা ঠিক নয়। এতে পরিবেশ নষ্ট হতে পারে।

 

অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্ম্মা ইউনিফর্ম সিভিল কোর্ট (ইউসিসি) নিয়ে ওয়েসির অভিযোগের জবাব দিয়েছেন। হিমন্ত বলেন, ‘দেশের প্রতিটি সাধারণ নাগরিক ইউসিসি চায়। কোনো মুসলিম নারী কখনোই চাইবে না যে তার স্বামী আরও তিনজন স্ত্রীকে ঘরে আনুক। বিশ্বাস না হলে যে কোন মুসলিম নারীকে জিজ্ঞেস করে দেখুন, তার চিন্তাভাবনা তখনই সামনে চলে আসবে। ইউনিফর্ম সিভিল কোড আমার বিষয় নয়। এটা দেশের প্রতিটি সাধারণ নাগরিক ও মুসলিম নারীর সমস্যা। তিন তালাক বাতিল করে তাদের যেমন ন্যায়বিচার দেওয়া হয়েছে, তেমনি ইউসিসিও কার্যকর করা হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.