“শরিয়ত আইন মেনেই আফগানিস্তানে প্রতিষ্ঠিত হবে ইসলামিক সরকার ” জানাল তালিবান

২০১৯ সালে আগস্ট এর মাঝামাঝি সময়ে আফগানিস্তানের গণতান্ত্রিক সরকারকে সরিয়ে ক্ষমতায় আসে তালিবান।

0 47

- Advertisement -

ওয়েব ডেস্ক, ২৯ মার্চ:- ফের আফগানিস্থানে ইসলামী শরীয়ত আইন শুরু। শুধু মহিলা নন এবারে পরোয়ানা জারি পুরুষদের জন্যও। দেশের গণতান্ত্রিক সরকারকে সরিয়ে দেশ দখল করার পর থেকেই শুরু হয় তালিবানদের অমানুষিক অত্যাচার।

- Advertisement -

আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে নেওয়ার পর তালেবান বলেছিল তারা শরিয়া বা ইসলামী আইনের ভিত্তিতে দেশ শাসন করবে। প্রথম সংবাদ সম্মেলনে তালেবান মুখপাত্র বলেছিলেন – মিডিয়া ও নারী অধিকারের মতো বিষয়গুলো ইসলামী আইনের কাঠামোর মধ্যে থেকে সম্মান করা হবে। তবে কিভাবে করা হবে সেই বিষয়ে তখন কিছু বলেনি তালিবান।

পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত নোবেল শান্তি পুরস্কার জয়ী মালালা ইউসুফজাই যিনি পাকিস্তানের মেয়েদের শিক্ষা বিস্তারের পক্ষে কাজ করায় তার ওপর গুলি চালিয়েছিল তালেবান। তিনি বলেছেন শরিয়া আইন চালু হলে আফগানিস্থানে নারী ও শিশুদের অবস্থা হবে ভয়াবহ।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্স সূত্রে খবর, তালিবান প্রশাসনের কর্মকর্তারা সরকারি অফিসে টহলদারি শুরু করেছেন। সেখানে কর্মচারীদের শুধু পোশাকই নয় এমনকি তাদের দাড়ির গড়নটুকুও পরিদর্শন চলছে।তালিবান নিয়ম অনুযায়ী সকল কর্মচারীর বড় ঢিলে টপ এবং প্যান্ট পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এই নিয়ম না মানলে কঠোর শাস্তির মুখে পড়তে হবে।

অতীতের তালিবানি শাসনে নারী শিক্ষা, সংস্কৃতি সব যেমন খর্ব হয়েছিল আবার তারই পুনরাবৃত্তির আভাস পাচ্ছে আফগানিস্থান। গত সপ্তাহে একটি নির্দেশিকা জারি করে মেয়েদের ষষ্ঠ শ্রেণীর উপর শিক্ষা গ্রহণ আইন বিরুদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.