“now I am free” মন্ত্রিসভার রদবদলের পরও স্থান না পেয়ে অভিমানি পোস্ট সিতাইয়ের দুবারের বিধায়ক জগদীশ চন্দ্র বর্মা বসুনিয়ার, তবেকি দলবদল না রাজনৈতীক সন্ন্যাসের ইঙ্গিত ?

0 162

- Advertisement -

কোচবিহার,৫ আগষ্ট : মন্ত্রিসভার রদবদলে কোচবিহার জেলা থেকে উদয়ন গুহ কে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী করা হলেও বঞ্চিত থেকে গেলেন সিতাই বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক জগদীশ চন্দ্র বর্মা বসুনিয়া।

- Advertisement -

উদয়ন গুহকে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী করার পরেই সিতাই বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক জগদীশ চন্দ্র বর্মা বসুনিয়া ফেসবুকে পোস্ট করেন “now I am free” সিতাই বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়কের এই ফেসবুক পোস্ট কে কেন্দ্র করে শুরু হয়েছে রাজনীতির জল্পনা।

তবে কি মন্ত্রীত্ব না পেয়ে দলবদলের কথা চিন্তা করছেন অভিমানী বিধায়ক জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়া? নাকি রাজনৈতি থেকে সন্ন্যাস নিচ্ছেন তিনি? ২০১০ সালে ফরওয়ার্ড ব্লক ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন জগদীশ চন্দ্র বর্মা বসুনিয়া। তৃণমূল কংগ্রেস থেকে দুই দুইবার বিধায়ক হয়েছেন তিনি। গত ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে যেখানে গোটা জেলায় পরাজিত ছিল তৃণমূল কংগ্রেস সেখানে একমাত্র সিতাই বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেস ভালো ফল করেছিল।

২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনের পর ঘরছাড়াও হতে হয়েছিল বিধায়ককে। কিন্তু তারপরেও গত ২০২১ এর নির্বাচনের কোচবিহার জেলায় তৃণমূল কংগ্রেসের ভরাডুবিতেও জয়ী হন জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়া। সেই জায়গায় ২০১৫ সালে ফরওয়ার্ড ব্লক ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসের যোগদান উদয় গুহ।

তারপরেও মন্ত্রিত্ব পেলেন উদয় গুহ। অপরদিকে কোচবিহার জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের নতুন সভাপতি অভিজিৎ দে ভৌমিককে করা হয়েছে। সাংগঠনিক দায়িত্ব পাওয়ার পরে জেলা সভাপতি ও তার সঙ্গে কোনোভাবে যোগাযোগ করেনি বলে অভিযোগ অভিমানী বিধায়ক জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়ার। জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়া বলেন, জেলায় জেলা সভাপতি পরিবর্তন করা হয়েছে। নতুন করে সমস্ত ব্লক গুলিতে ব্লক কমিটি তৈরি হবে। আমাকে যে ব্লকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল দেখাশোনা করার জন্য সেই জায়গা থেকে আমি ফ্রি হয়ে যাচ্ছি। এছাড়াও তিনি বলেন দীর্ঘদিন ধরে কঠিন পরিস্থিতিতে সিতাই বিধানসভা কেন্দ্রে দলের সংগঠনকে টিকিয়ে রাখা হয়েছে।

গত ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনের পর কোন বিধায়ককে যদি ঘর ছাড়া হতে হয়েছে সেটি সিতাই বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়কে। সেই জায়গা থেকে গত একুশের নির্বাচনে কোচবিহার জেলায় সিতাই বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেস ভালো ফল করে। কোচবিহার জেলা, রাজবংশী অধ্যুষিত এলাকা তাই সকলের প্রত্যাশা ছিল কোচবিহার জেলা থেকে রাজবংশী সম্প্রদায়ের কাউকে মন্ত্রীত্ব দেওয়া হবে। দলের কর্মীরা সেই প্রত্যাশা করতেই পারে। কিন্তু দল যা ভালো বুঝেছে তাই করেছে। আগামী দিনে বিধায়ক হিসেবে আমার যতটুকু কাজ আমি তাই করবো। যদি সাংগঠনিক কোন দায়িত্ব দেওয়া হয় তাহলে তা সেই সময় ভেবে দেখবো।

Leave A Reply

Your email address will not be published.