দিল্লীর কাছে হারের পর, হারের কারন জানালেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়ার

0 205

- Advertisement -

ওয়েব নিউজ,১০ এপ্রিল:- দু-ম্যাচ জয়ের পর ঋষভ পন্থের দিল্লির সামনে মুখ থুবড়ে পড়ল কলকাতা নাইট রাইডার্স।বোলিং ব্যাটিং সব বিভাগেই কে.কে.আর কে টেক্কা দিল দিল্লি ডেয়ারডেভিলস।

- Advertisement -

KKR এর একাধিক খামতি বারংবার ধরা পড়লো আজ।দিল্লির ওপেনিং জুটি ডেভিড ওয়ার্নার ও পৃথ্বীশ শা সামনে কার্যত অসহায় লাগছিল কোলকাতার বোলারদের।পৃথ্বী(২৯ বলে ৫১ রান) ও ওয়ার্নার(৩৫ বলে ৬১রান) থামার পর সুনীল নারিন আন্দ্রে রাসেল বরুণ চক্রবর্তী বোলিংয়ে কিছুটা ম্যাচে ফিরে এসেছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স তবে ডেথ ওভারের দুর্বলতা ফের প্রকাশ্যে চলে আসে শার্দুল ঠাকুর ও আকসার প্যাটেল এর ব্যাটিং এর সামনে। কুড়ি ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে দিল্লি ডেয়ারডেভিলস ২১৫ রান করে।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ফের ব্যাটিং দুর্বলতা প্রকাশ পায়। ফের ওপেন করতে নেমে ব্যর্থ অজিঙ্কা রাহানে ও ভেঙ্কটেশ আইয়ার। নীতিশ রানা ও শ্রেয়স আইয়ার কিছুটা ফর্মে ফিরলেও পাহাড়প্রমাণ রানের সামনে তা যথেষ্ট ছিলনা। মুস্তাফিজুর রহমান কুলদীপ যাদব ও খলিল আহমেদ এর বোলিংয়ের সামনে ১৯.৪ বলে ১৭১ রানে ১০ উইকেট হারায় কে কে আর।

মেসেজেস এ কলকাতার অধিনায়ক শ্রেয়শ আইয়ার জানান “‘প্রথম ওভার থেকেই ওরা খুব ভালো শুরু করেছিল। পৃথ্বী একাই যেন বোলারদের উপর আক্রমণ করছিল। সত্যি বলতে, সেই সময়ে আমরা দিশেহারা হয়ে পড়েছিলাম। ওদের আটকানোর কোনও উপায় খুঁজে পাচ্ছিলাম না। ব্যাটিংয়ের পক্ষে এই উইকেট আদর্শ ছিল। প্রথম দিকে যে জুটি ওরা গড়ে ফেলেছিল সেটাই বাকি সময়টা ওদের ছন্দ জুগিয়ে গিয়েছে। খুব ভালো ব্যাটিংয়ের পিচ ছিল। কিন্তু আমরা সেটা কাজে লাগাতে পারিনি।’‘আমরা তিনটে ম্যাচে জিতেছি রান তাড়া করে। তবে এই ম্যাচে সফল হইনি। আমরা একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছি (টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার), এবং সেটি ভালো ভাবে কাজ করেনি।’ তিনি এর সঙ্গেই যোগ করেন, ‘এখান থেকে অবশ্য অনেক কিছু ইতিবাচক জিনিস নেওয়ার রয়েছে। আমরা জেতার মতো আগ্রাসন দেখিয়েছি। আমাদের শুরুটা ভালো না হলেও, মাঝের ওভারগুলিতে, বিশেষত ৭ থেকে ১৫ ওভার পর্যন্ত আমরা ভালো খেলেছি। তার পরে ওভারপিছু ১২ রান তুলতে চেয়েছিলাম। সেটা খুব একটা কঠিন কাজ নয়। নিজের ইনিংস ঠিক করে সাজানো গেলে সেটা সম্ভব। কিন্তু আজ সেটা পারিনি আমরা।”

Leave A Reply

Your email address will not be published.