‘আমি শুনলাম বাচ্চা একটি মেয়ে মারা গেছে। সেটা আপনি রেপ বলবেন, নাকি প্রেগনেন্ট বলবেন ‘ হাঁসখালি নাবালিকা ধর্ষণ কাণ্ডে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

হাঁসখালি নাবালিকা ধর্ষণ কাণ্ডে মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যে রাজ্যজুড়ে বিতর্কের ঝড়

0 195

- Advertisement -

ওয়েব ডেস্ক,১১ এপ্রিল :- হাঁসখালি ধর্ষণ কাণ্ডে ইতিমধ্যেই রাজ্যজুড়ে শোরগোল পড়েছে। আজ এই প্রসঙ্গে বিস্ফোরক মন্তব্য করে কার্যত বিতর্কের ঝড় তুললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হাঁসখালি কাণ্ডের নাবালিকা ধর্ষনের প্রসঙ্গে তাঁর মন্তব্য, ‘মেয়েটার শুনেছি লাভ অ্যাফেয়ার ছিল! তাহলে কি এটাকে ধর্ষণ বলবেন?’পাঁচ দিন পর নির্যাতিতার পরিবার কেন অভিযোগ দায়ের করলেও সে বিষয়ে প্রশ্ন তুললেন মুখ্যমন্ত্রী।

- Advertisement -

আজ সোমবার বিশ্ববাংলা মেলা প্রাঙ্গনে হাঁসখালির ঘটনা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি শুনলাম বাচ্চা একটি মেয়ে মারা গেছে। সেটা আপনি রেপ বলবেন, নাকি প্রেগনেন্ট বলবেন নাকি শরীরটা খারাপ বলবেন?… আমি পুলিশকে বলেছি, ঘটনাটা খারাপ। গ্রেফতার হয়েছে। মেয়েটার লাভ অ্যাফেয়ার ছিল।’

ডিজির কাছে এরপর মুখ্যমন্ত্রী তথা পুলিশ মন্ত্রী জানতে চান তিনি কি ঠিক বলছেন? তিনি আরও বলেন, ‘মেয়েটি মারা গেছে ৫ তারিখ। অভিযোগ জানানো হয়েছে ১০ তারিখ। পুলিশ কীকরে তদন্ত করবে? কী করে বোঝা যাবে মেয়েটি রেপ হয়েছে নাকি প্রেগনেন্ট ছিল নাকি ধরে মারা হয়েছে নাকি শরীরটা খারাপ ছিল? কাউকে কিছু না বলেই দেহ জ্বালিয়ে দেওয়া হল, পুলিশকে জানানো হল না। এবার পুলিশ তদন্ত করবে কী করে?’

এরপর মুখ্যমন্ত্রী মেয়েটির পরিবারের উদ্দেশ্যে বলেন ‘মেয়েটির লাভ অ্যাফেয়ার ছিল বাড়ির লোক সেটা জানত। প্রতিবেশীরাও সেটা জানত। এখন যদি কোনও ছেলেমেয়ে প্রেম করে,সেটা আমার পক্ষে আটকানো সম্ভব নয়। এটা উত্তরপ্রদেশ নয়, যে লাভ জিহাদ প্রোগ্রাম করব।’

এ প্রসঙ্গে আরও জানা যায় অভিযুক্তের দাদা এলাকাতে মূল্যের প্রভাবশালী নেতা। তার ফলে শাসকদলের ঘনিষ্ঠতার প্রশ্ন উঠছে সব মহলে। এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কী করবেন বলুন। বাংলায় সবাই তৃণমূল। তাই তৃণমূলকে টানবার দরকার নেই। বাবা যদি তৃণমূল করে, ছেলে প্রেম করেছে নাকি করেছে তাতে বাবাকে আর তৃণমূলকে টানা কেন?’

পরিশেষে মুখ্যমন্ত্রী আরো জানান ‘নাবালিকা দেহটি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তাই সত্যি জানা সম্ভব নয়। মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্যের পরই রাজ্যজুড়ে বিতর্কের ঝড় উঠেছে

Leave A Reply

Your email address will not be published.