পিঠের শিরদাঁড়া ভেঙ্গে পাঁচ বছর ধরে শয্যাশায়ী স্বপন,পুজোর আগে বিষাদের সুর স্বপন বিশ্বাসের পরিবারে, সাহায্যের আর্জি পরিবারের

সরকারি সাহায্য বলতে ব্লক প্রশাসনের দেওয়া মাত্র ১২ কেজি চাল। এছাড়া আর কোনরকম সরকারি সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ।

0 15

- Advertisement -

কোচবিহার, ২২ সেপ্টেম্বর:- পিঠের শিরদাঁড়া ভেঙ্গে পাঁচ বছর ধরে শয্যাশায়ী স্বপন, পুজোর আগে বিষাদের সুর স্বপন বিশ্বাসের পরিবারে,সাহায্যের আর্জি পরিবারের। মাথাভাঙ্গা ২ নং ব্লকের পারডুবি গ্রাম পঞ্চায়েতের দক্ষিণ বরাইবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা স্বপন বিশ্বাস গত পাঁচ বছর আগে পথ দুর্ঘটনায় আহত হয়ে বিছানায় শয্যাশায়ী অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী স্বপন বাবু শয্যাশায়ী অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছেন পরিবারের সদস্যরা।সরকারি সাহায্য না মেলায় কার্যত বিনা চিকিৎসায় অসহায় অবস্থায় দিন কাটছে স্বপন বাবুর। স্বপন বিশ্বাস জানান, প্রায়  বছর পাঁচেক আগে বাইক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে তার মেরুদণ্ডের শিরদাঁড়া ভেঙে গিয়েছিল। সংসারে আর্থিক অনটন থাকায় চিকিৎসা করাতে পারেননি, তাই নিজের বাড়িতেই শয্যাশায়ী হয়ে দিন কাটছে । তিনি দিনমজুরের কাজ করে কোনরকমে সংসার চালাতেন। নুন আনতে পান্তা ফুরোনোর মতো অবস্থায় কোনরকমে টেনেটুনে সংসার চলছিল স্বপন বাবুর। পথ দুর্ঘটনায় গুরতর আহত হয়ে বিপত্তি বাধে পরিবারটির।

- Advertisement -

স্বপন বাবুর বক্তব্য, তার স্ত্রী অনামিকা বিশ্বাস লোকের বাড়িতে বাড়িতে সাহায্য তুলে কোন রকমে দুবেলা দুমঠো খেয়ে পড়ে জীবন বাঁচিয়ে রেখেছেন। একদিন তার স্ত্রী সাহায্য আদায়ে বের না হলে কি খেয়ে দিন চলবে এনিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়তে হয় পরিবারটিকে। স্বামী স্ত্রী ও চার বছরের এক কন্যা সন্তান মিলে তিন জনের সংসার স্বপন বিশ্বাসের।রেশন কার্ড না থাকায় রেশন সামগ্রীও মিলছে না বলে অভিযোগ।
তবে সরকারি সাহায্য বলতে ব্লক প্রশাসনের দেওয়া মাত্র ১২ কেজি চাল।এছাড়া আর কোনরকম সরকারি সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ।

ব্লক প্রশাসনের আধিকারিকরা বাড়িতে এসে খোঁজ খবর নিলেও এরপর আর কোনো তেমন সাহায্য পায়নি বলে আক্ষেপ তার পরিবারের। বর্তমানে অর্থের অভাবে বন্ধ রয়েছে তার চিকিৎসা। চরম কষ্টে দিন গুজরান করছে দিনমজুর  পরিবারটি। স্বপন বিশ্বাসের স্ত্রী অনামিকা বিশ্বাস বলেন প্রতিদিন ঠিকঠাক খাবার জোটে না চিকিৎসার অর্থ কোথা থেকে জোগাড় করবেন। অর্থের অভাবে বন্ধ রয়েছে তার স্বামীর চিকিৎসা। স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো হয়েছিল তারা সহযোগিতার আশ্বাসও দিয়েছিলেন, কিন্তু মেলেনি চিকিৎসার সাহায্য। স্বামীকে বাঁচাতে স্বামীর চিকিৎসার জন্য সাহায্যের আর্জি জানিয়েছেন ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.