জাতীয় সংগীতের পরে রাজ‍্য সংগীত গাওয়া বা বাজানোয় রইলো না বাঁধা

0 47

- Advertisement -

ওয়েব নিউজ, ২৮এপ্রিল: কেন্দ্র সরকার যা সমস্ত স্থানীয় ভারতীয় ভাষার প্রচারের জন্য কাজ করছে, এখন সরকারী অনুষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীতের সাথে রাজ‍্য সঙ্গীত বাজানোর এবং গাওয়ার নীতিগত অনুমতি দিয়েছে। তামিলনাড়ুতে বিতর্কের জেরে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রক। যার অধীনে এখন আইআইটি মাদ্রাজ সহ রাজ্যের যেকোনো কেন্দ্রীয় বা রাজ‍্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীত ও জাতীয় সঙ্গীতের পরে রাজ‍্য গান বাজানো বা গাওয়া যাবে। এখনও পর্যন্ত এই ব্যবস্থা কার্যকর ছিল না। আগামী দু-একদিনের মধ্যে এ বিষয়ে মন্ত্রালয় থেকেও আদেশ জারি করা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

- Advertisement -

শিক্ষা মন্ত্রকের এই সিদ্ধান্তকে রাজ্যগুলিতে উদ্ভূত ভাষা বিরোধের অবসানের দিকে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হিসাবেও বিবেচনা করা হচ্ছে। আগামী দিনে, একই ধারায় অন্যান্য রাজ্যেও অনুমতি দেওয়া হতে পারে। প্রসঙ্গত, এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে শুধুমাত্র তামিলনাড়ুর কেন্দ্রীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য। যাই হোক, নতুন জাতীয় শিক্ষানীতি প্রবর্তনের পর শিক্ষাকে ভাষাগত বন্ধন থেকে মুক্ত করতে প্রতিনিয়ত তৎপর রয়েছে শিক্ষা মন্ত্রালয়। উচ্চশিক্ষায় এ বিষয়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, পাশাপাশি আগামী দিনে আরও কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

 

একই সঙ্গে এক ভারত শ্রেষ্ঠ ভারত-এর মতো প্রচারণাও সরকার চালাচ্ছে। শিক্ষা মন্ত্রকের সাথে যুক্ত উচ্চপদস্থ সূত্রের মতে, সম্প্রতি আইআইটি মাদ্রাজের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে তামিলনাড়ু রাজ্য সঙ্গীত বাজানো থেকে বিরত থাকার পরে মন্ত্রক এই পদক্ষেপ নিয়েছিল। পরে স্থানীয় পর্যায়ে এটি একটি বড় ইস্যুতে পরিণত হয়। এর ঢেউ কেন্দ্রেও পৌঁছেছিল।

এদিকে, শিক্ষা মন্ত্রালয়, অনেক চিন্তা-ভাবনা করে, রাজ‍্যের দাবীর যথাযথ বিবেচনা করেছে। এর পাশাপাশি, আইআইটি মাদ্রাজ সহ রাজ্যের সমস্ত কেন্দ্রীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিসিয়াল প্রোগ্রামে জাতীয় সঙ্গীতের পাশাপাশি রাজ‍্যের নিজস্ব ভাষার সংগীত গাওয়ার এবং বাজানোর নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তবে মন্ত্রালয়ের তরফ থেকে স্পষ্ট করা হয়েছে যে এই গানটি জাতীয় সঙ্গীতের পরে বাজানো বা গাওয়া যাবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.